Farmzila Foods Ltd

 

আমাদের দেহে গ্লুকোজ আকারে শক্তি উৎপাদন করতে চিনির প্রয়োজন, তবে সেটা পরিমাণে কত! আমাদের শরীরে চিনি কেমন নিয়ামক হিসেবে কাজ করে।
২০১৮সালে জনস্বাস্থ্য ইংল্যান্ড এর একটি প্রতিবেদনে দেখা গেছে যে,  যুক্তরাজ্যের অধিকাংশ মানুষ প্রয়োজনীয় দৈনিক চিনি গ্রহণের বিপরীতে তিনগুণঅধিক চিনি সেবন করেন। এনএইচএস এর মতে প্রাপ্তবয়স্কদের ৩০ গ্রাম চিনি থাকাউচিৎ যা ৭ টি চিনি কিউবের সমতুল্য,  তার মানে বেশীরভাগ লোক ২১ চিনির কিউবসমতুল্য চিনি খাচ্ছেন। কেক, মিষ্টি,  চকোলেট, অ্যালকোহল, এবং ড্রিঙ্কসখাওয়ার বিষয়ে আমাদের যত্নশীল হওয়া উচিৎ এগুলো স্বাস্থ্যকর খাবার নয়।সুপারমার্কের রুটি, পাস্তা, সস, সালাদ ড্রেসিংস, প্রাতরাশের সিরিয়াল এবংরেডিমেড খাবারের মতো অন্যান্য খাবারগুলিতে লুকানো শর্করা রয়েছে।

চিনি আমাদের শরীরে কী কী প্রভাব ফেলছে তা একটু তলিয়ে দেখা যাক।

সমস্ত চিনি আমাদের জন্য ki ক্ষতিকর?
সংক্ষেপে,  না, আমাদের দেহের গ্লুকোজ ভাঙ্গার জন্য চিনির প্রয়োজন যা শক্তি উৎপাদনেরজন্য প্রয়োজন। চিনি বেশী বেশী হয়ে গেলে সমস্যা হতে পারে, যদি এটি পরিশোধিতচিনি হয়ে থাকে। আমাদের দেহের শক্তির প্রধান উৎস হলে গ্লুকোজ, শর্করা ভেঙেএটা উৎপন্ন হয়। কার্বোহাইড্রেট,  স্টার্চ,  ফাইবার এবং চিনির সমন্বয়ে গঠিতযা দুই প্রকার ১, সরল ২. জটিল
শর্করা জাতীয় চিনির উপাদান সাধারণকার্বোহাইড্রেট নামে পরিচিত কারণ দেহ এটিকে শক্তিতে রূপান্তর করতে দ্রুতগ্লুকোজ ভেঙে দেয়। এটি চিনিকে তাপ দেয় তবে শরীরে গ্লুকোজ ব্যবহারের পরেআমাদের সামর্থ্য বজায় রাখে।
কার্বোহাইড্রেটের মধ্যে থাকা স্টার্চ এবংফাইবারগুলি জটিল কার্বোহাইড্রেট হিসেবে পরিচিত কারণে দেহে হজম হতে এবংগ্লুকোজ ভেঙে আরও সময় নেয় যা সাধারণ কার্বোহাইড্রেটের চেয়ে দীর্ঘতর শক্তিসরবরাহক। সাধারণ কার্বোহাইড্রেট ফলমূল,  শাকসবজি, এবং দুগ্ধজাত পণ্যগুলিতেপাওয়া চিনির প্রাকৃতিক গঠন সেই সাথে দানাযুক্ত চিনি এবং কেক মিষ্টি,  চকোলেট,  বিস্কুট, মদ আর পানীয়গুলিতে থাকে চিনি।

চিনি খেলে শরীরে কী ঘটে?
কার্বোহাইড্রেটচিনি ভেঙে গ্লুকোজ হয়। গ্লুকোজ রক্তে গিয়ে শক্তিতে রূপান্তরিত হয়ে শরীরসচল রাখে। মাত্রাতিরিক্ত চিনি খেলে এগুলো সঞ্চিত হয় যকৃতে ও পেশীতে ফ্যাটহিসেবে। অর্থাৎ তখন ওজন বৃদ্ধি সহ নানা সমস্যা করে।
হরমন ইনসুলিনআমাদের আমাদের কোষগুলিকে গ্লুকোজ শোষণ করার অনুমতি দেয়। এর ফলে রক্তেশর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রন করে গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে।

কীভাবে চিনি আমাদের স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করে?
চিনিশক্তি দেয় ঠিক আছে। কিন্তু অতিরিক্ত হলে ক্ষতির কারণ হয়। কিন্তু একক কোনখাদ্যকে রোগের একমাত্র কারণ ভাবা ঠিক নয়। তাতে কিটো ডায়েট এর মতো ঘটনা ঘটে।যেখানে প্রচুর প্রোটিন আর চর্বি নিতে হয় আর কম শর্করা তখন মূল শক্তির উৎসবাদ পড়ে যায়। আর চিনি অতিরিক্ত নেওয়ার ফলে অন্যান্য পুষ্টিকে এটি বাতিল করেযা স্থুলত্বের কারণ।
অতিরিক্ত ওজন ও মোটার কারণে হৃদরোগ, টাইপ টু ডায়াবেটিক ও স্ট্রোক হয়।

চিনির উচ্চমাত্রার ডায়েটের কারণে অন্যান্য স্বাস্থ্যগত সমস্যাগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো :
রক্তে শর্করার মাত্রা ওঠানামা করা:
স্বাস্থ্যকরভারসাম্যযুক্ত ডায়েট না থাকায় এবং সাধারণ কার্বোহাইড্রেট উচ্চ পরিমাণেরক্তের শর্করার মাত্রা ওঠানামা করতে পারে। এটি আপনাকে মূহুর্তেই তুখোরশক্তি সরবরাহ করে অল্প সময়েই নেতিয়ে দিবে সুতরাং অলসতা আর ক্ষুধার নিবৃত্তিহয়না।

কগনেটিভ ফাংশন :
চিনির আধিক্য আমাদের মস্তিস্কেও প্রভাবফেলে। ইম্পেরিয়াল কলেজ, লন্ডন এবং ডায়াবেটিস, যুক্তরাজ্য দ্বারা সাম্প্রতিকএক গবেষণায় দেখা গেছে যে, উচ্চ স্তরের রক্তে শর্করাগুলি বয়স বাড়ার কারণেতাদের স্মৃতিশক্তি ও ঘনত্ব দুর্বল হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। এই গবেষণায় ৫০বছরেরও বেশি বয়েসী ৫০০০ জনের বেশি জড়িত যাদের ১০ বছর মেয়াদে প্রতি ২ বছরেতাদের জ্ঞানের কার্যক্ষমতা পরীক্ষা করা হয়েছিল।  অধ্যয়ন গোষ্ঠীতেডায়াবেটিসের সাথে বা ছাড়াও অংশগ্রহণকারীদের মিশ্রণ ছিল। অংশগ্রহণকারীদেরমধ্যে ডায়াবেটিস ছিল কী না তা বিবেচনা না করেই,  উচ্চ রক্তে শর্করারপরিমানগুলি জ্ঞানীয় পরীক্ষায় খারাপ ফলাফল করে।
এর সমাধান হলো ডায়েট এবং ব্যায়ামের মাধ্যমে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করা।

মেদযুক্ত যকৃত :
নাস্তাজাতীয় খাবারে প্রচলিত ফ্রুকটোজ রেডিমেড খাবার গ্রহণে চর্বিযুক্ত লিভার হয়।এটি শরীরের কোষ এবং অঙ্গের গ্লুকোজ গ্রহণের পরিবর্তে লিভার দ্বারা ভাঙে, এবার লিভারে ফ্রুকটোজকে শক্তিতে রূপান্তরিত করে তখন গ্লাইকোজেন হিসেবেসংরক্ষিত হয়। তবে এগুলিকে ব্যবহার করা গেলে অতিরিক্ত চর্বিতে পরিণত হয়। এটিঅ-অ্যালকোহলযুক্ত ফ্যাটি লিভার ডিজিজ। তবে প্রথমদিকে একে চিহ্নিত করতেপারলে তেমন ক্ষতি করতে পারেনা

বেশী চিনি খাওয়ার লক্ষণ :
ওজন বৃদ্ধি
দাঁতের ক্ষয়
মেজাজ পরিবর্তন
ক্লান্তি
ক্ষুধা
হাইপারগ্লাইকেমিয়ার কারণে
তৃষ্ণা ও শুষ্ক মুখ
অনিচ্ছাকৃত ওজন হ্রাস
মূত্রাশয় ও ত্বকের সংক্রমণ
ঝাপসা দৃষ্টি
অবসাদ
ঘন ঘন প্রস্রাব
পেট ব্যাথা
শ্বাসে দুর্গন্ধ

সারসংক্ষেপ :
চিনিযেমন প্রয়োজন তবে অতিরিক্ত গ্রহণ করা হলে স্ট্রোক, ফ্যাটি লিভার, স্থুলত্ব, এবং ডায়াবেটিসের কারণ হতে পারে। তাই চিনি নিয়ে ভারসাম্যপূর্ণখাবার গ্রহণ করা উচিৎ।

 

মোহাম্মদ খাইরুল ইসলাম চৌধুরী
কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার ও খাদ্য ও পূষ্টি গবেষক

 

16 Responses

  1. Pingback: robaxin for sleep
  2. Pingback: synthroid faq
  3. Pingback: remeron medicine
  4. Pingback: spironolactone gel
  5. Pingback: protonix cost
  6. Pingback: actos resolutorios
0
    0
    Your Cart
    Your cart is emptyReturn to Shop